সারাদেশ

সিলেট-২ আসনে প্রথমবারের মতো বিএনপির নারী প্রার্থী

সিলেট-২ আসনে (বিশ্বনাথ-ওসমানীনগর) নির্বাচনের স্বাধীনতার পর এই প্রথমবারের মতো বিএনপি কোনো নারী প্রার্থীকে দলীয় মনোনয়ন দিয়েছে। এ আসনে এরআগে সংসদ নির্বাচনে কোনো নারী মনোনয়ন প্রত্যাশী হিসেবে মাঠে নামেননি কিংবা প্রতিদ্বদ্ধিতা করতে দেখা যায়নি। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট-২ আসনইে প্রথমবারের মতো বিএনপির একমাত্র নারী দলীয় মনোনয়ন পেয়ে রয়েছেন ভোটের মাঠে। তিনি সিলেট-২ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য, নিখোঁজ বিএনপি নেতা ইলিয়াস আলীর সহধর্মীনি ও বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা তাহসিনা রুশদীর লুনা।

আগামীকাল বুধবার তিনি মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার কথা রয়েছে। প্রবাসী অধ্যুষিত সিলেট-২ আসন
(বিশ্বনাথ-ওসমানীনগর) আসনে সংসদ সদস্য ছিলেন নিখোঁজ বিএনপি নেতা এম. ইলিয়াস আলী। নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির প্রভাবশালী এই নেতাকে তিন হাজার ১৭৪ ভোটে পরাজিত করে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন তৎকালীন যুক্তরাজ্য ফেরত আওয়ামী লীগ নেতা শফিকুর রহমান চৌধুরী। পরে দশম সংসদ নির্বাচনে মহাজোটের হয়ে জাতীয় পার্টির নেতা ইয়াহইয়া চৌধুরী এহিয়া সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন এ আসনে।

এদিকে, একাদশ সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে বিএনপির হয়ে এই আসনে প্রার্থী হতে রাজনৈতিক সমর্থনের পাশাপাশি জনসমর্থন গড়ে তুলেছেন তাহসিনা রুশদীর লুনা। ফলে তার স্বামীর হারানো আসন পুনরুদ্ধারে তাকেই বেছে নিয়েছে বিএনপি।

জানা গেছে, সিলেট-২ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য, বিএনপির সাবেক কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ইলিয়াস আলী নিখোঁজের পর থেকে এই আসনে বিএনপির হাল ধরেন তার সহধর্মীনি তাহসিনা রুশদীর লুনা। দীর্ঘদিন থেকে মাঠে রয়েছেন তিনি। বিগত স্থানীয় নির্বাচনগুলোতে নেতৃত্ব দিয়ে বিএনপির প্রার্থীদের বিজয়ী করে চমক সৃষ্টি করেন লুনা। সিলেট-২ আসনে তিনিই হয়ে উঠেন বিএনপির কান্ডাররী। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এই আসনে বিএনপির একক প্রার্থী হিসেবে দলীয় মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করে জমা দিয়েছেন তিনি। যদিও কৌশল হিসেবে তার জ্যেষ্ঠ ছেলে আবরার ইলিয়াস অর্ণবও মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করে জমাও দিয়েছেন।

জানা গেছে, সিলেট-২ (বিশ্বনাথ-ওসমানীনগর) আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ইয়াহইয়া চৌধুরী এহিয়া। এর আগে ২০০৮ সালের নির্বাচনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন জেলা আ.লীগ সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী। আর ২০০১ সালের নির্বাচনে এই আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন বিএনপির সাবেক কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ‘নিখোঁজ’ এম. ইলিয়াস আলী। ২০১৪ সালের নির্বাচনে আসন ভাগাভাগির কারণে জাতীয় পার্টির প্রার্থী এ আসন পাওয়ায় আ.লীগের হাতছাড়া হয় এটি। আর বিএনপি তো নির্বাচনেই অংশ নেয়নি। এসবের ফলে বড় দলগুলোর চোখ এবার এ আসনের দিকে। এটি পুনরুদ্ধার করতে বিএনপি ও আসনটি নিজেদের দখলে রাখতে মরিয়া জাতীয়পার্টিও।

এ ব্যাপারে তাহসিনা রুশদীর লুনা বলেন, নির্বাচনের বর্তমানে যে পরিবেশ, তা আমাদের জন্য কঠিন লড়াই। এরপরও গণতান্ত্রিক আন্দোলনের জন্য আমরা নির্বাচন করছি। ভোটাররা যাতে উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে ভোট দিতে পারেন, সেজন্য ভোটারদের কেন্দ্রে আসা নিশ্চিত করতে হবে নেতাকর্মীদের। যদিও এই নির্বাচনে উৎসাহ-উদ্দীপনা থাকার কথা ছিল, এখন সেটা নেই।