বিনোদন

মারজিয়া মিমির লাখ কথন

নারী ইউটিউবার মারজিয়া মিমি। দীর্ঘদিন ধরে সামাজিক সচেতনতা নিয়ে ভিডিও বানান তিনি। ২০১৫ সালের মাঝামাঝি সময়ে অভিনয়ের সঙ্গে যুক্ত হন এই তরুণী। এরই মধ্যে ৫০টিরও বেশি নাটক, টেলিফিল্ম ও ডকুমেন্টারি ড্রামায় অভিনয় করেছেন তিনি।

বর্তমানে ইউটিউবে বেশি সময় দিচ্ছিলেন। কাটছিল সময় এই ভিডিও শেয়ারিং প্ল্যাটফরমে। সামাজিক সচেতনতামূলক ভিডিও খুব সহজেই নেটিজেনদের নিকট গ্রহণযোগ্যতা পেতে শুরু করে। বাড়তে থাকে লোকজন। সম্প্রতি চ্যানেলের সাবস্ক্রাইবার এক লাখ পেরিয়েছে।

ইউটিউবের সঙ্গে মিমির সম্পৃক্ততা ২০১৬ সালের ডিসেম্বরে শখের বসে। ওই সময় প্রাপ্তি নামক একটি ভিডিও আপলোড করেন তিনি। এরপর ২০১৭ সালের মার্চ থেকে নিয়মিত ভিডিও আপলোড করা শুরু করেন মারজিয়া। এখন পর্যন্ত ৪৫ টি ভিডিও প্রকাশ করেছেন তিনি।

মারজিয়া মিমি বলেন, ‘আমি অধিকাংশ সময়ই সামাজিক সচেতনতামূলক ভিডিও বানাই তবে মাঝেমধ্যে কমেডি ভিডিও ও বানাই। সবসময়ই আমি ভিডিওর মাধ্যমে কোন না কোন মেসেজ দেয়ার চেষ্টা করি।’

তিনি বলেন, ‘নারী ইউটিউবার হিসেবে খারাপ কমেন্ট তো কমবেশি শুনতেই হয় তবে সাপোর্ট আর ভাল কমেন্টের পরিমাণ বরাবরই বেশি। আর বাংলাদেশে সম্ভবত আমিই প্রথম সিঙ্গেল ফিমেল কন্টেন্ট ক্রিয়েটর যার চ্যানেল ১ লক্ষ সাবস্ক্রাইবার অতিক্রম করেছে।’

ইউটিউবার হতে চাইলে তাদের প্রতি পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, ‘কেউ ইউটিউবার হতে চাইলে অবশ্যই তাকে প্যাশনেট হতে হবে, ভাল কন্টেন্ট বানাতে হবে এবং নিয়মিত নিয়ম করে ভিডিও আপলোড করে যেতে হবে। ভিউ কম হলে মন খারাপ করা যাবে না।’