জাতীয়

জলবায়ু পরিবর্তনে ঝুঁকির মুখে বাংলাদেশের ১৩ কোটি মানুষ: বিশ্ব ব্যাংক

জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে তাপমাত্রা বৃদ্ধি ও অতিবর্ষণে বাংলাদেশের ১৩ কোটি ৪০ লাখ মানুষ ঝুঁকির মুখে রয়েছে। এ ঝুঁকি মোকাবিলায় পদক্ষেপ গ্রহণ না করলে ২০৫০ সাল নাগাদ আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ দাঁড়াবে জিডিপির ৬ দশমিক ৭ শতাংশ।

বুধবার সকালে রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে প্রকাশিত বিশ্ব ব্যাংকের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য ওঠে এসেছে। ‘সাউথ এশিয়া’স হটন্পটস: ইমপ্যাক্ট অব টেমপারেচার পিসিপিটেশন চেঞ্জেস অন লিভিং স্ট্যান্ডার্স’ শীর্ষক প্রতিবেদনটি উপস্থাপন করেন বিশ্ব ব্যাংকের মাথুরা মানি।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত ৬০ বছরে এ অঞ্চলের গড় তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেয়েছে এবং তা অব্যাহত আছে, যা কৃষি, স্বাস্থ্য ও উৎপাদনশীলতাকে প্রভাবিত করছে।

যদি পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয় তাহলে বাংলাদেশের গড় তাপমাত্রা ১ ডিগ্রি থেকে দেড় ডিগ্রি পর্যন্ত বাড়তে পারে। আর যদি কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করা না হয় তাহলে গড় তাপমাত্রা বাড়বে আড়াই ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত।

জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ২০৫০ সালের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হবে চট্টগ্রাম অঞ্চল। ঝুঁকির শীর্ষে বাকি জেলাগুলো হল- কক্সবাজার, বান্দরবান, রাঙামাটি ও নোয়াখালী।

অনষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী বলেন, জলবায়ু মোকাবিলায় আমরা অনেকের চেয়ে ভালো অবস্থানে আছি। তবে জলবায়ু মোকাবেলায় কম সুদে আরও ঋণ দরকার।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বিশ্ব ব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর চিমিয়াও ফান, বিশ্ব ব্যাংকের আঞ্চলিক ভাইস প্রেসিডেন্ট হাডিন শেফার ও বিশ্ব ব্যাংকের মুখ্য অর্থনীতিবিদ মুথুরা মানি প্রমুখ।