জাতীয়

হাতিরঝিলে ওয়াটার ট্যাক্সি চলাচল ৪ অক্টোবর পর্যন্ত বন্ধ

রাজধানীর গুলশান সংলগ্ন গুদারাঘাট ওয়াটার ট্যাক্সি ঘাটে দল বেধে যাত্রী আসছেন টিকিট কেটে কাঙ্ক্ষিত গন্তব্যে যাওয়ার জন্য। কিন্তু কাউন্টারে কাউকে না পেয়ে এবং সামনে টাঙ্গানো নোটিশ দেখে সেখান থেকে ফিরে যাচ্ছেন সবাই।

কারণ হিসেবে গুদারাঘাট কাউন্টারে গিয়ে জানা গেল, হাতিরঝিল ওয়াটার ট্যাক্সির মেরামত ও রক্ষণাবেক্ষণ উপলক্ষে হাতিরঝিল ওয়াটার ট্যাক্সির সব নিয়মিত কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। গত ২২ তারিখ থেকে এ কার্যক্রম ৪ অক্টোবর পর্যন্ত বন্ধ থাকবে।

hatirjhil

পাশাপাশি গুদারাঘাটে হাতিরঝিল কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে সেখানে নোটিশও টাঙ্গানো হয়েছে। সেখানে লেখা আছে, সাময়িক অসুবিধার জন্য আন্তরিকভাবে দুঃখিত। হাতিরঝিল ওয়াটার ট্যাক্সির মেরামত ও রক্ষণাবেক্ষণ উপলক্ষে হাতিরঝিল ওয়াটার ট্যাক্সির সব নিয়মিত কার্যক্রম ২২ সেপ্টেম্বর থেকে আগামী ৪ অক্টোবর পর্যন্ত বন্ধ থাকবে- আদেশক্রমে হাতিরঝিল কর্তৃপক্ষ। তবে বাড্ডা জেটি থেকে প্যাডেল বোর্ডের কার্যক্রম যথারীতি চালু থাকবে।

এ বিষয়ে কথা বলতে গুদারাঘাট ওয়াটার ট্যাক্সি কাউন্টারের ইনচার্জ সাইফুল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি। তবে সেখানে উপস্থিত ওয়াটার ট্যাক্সির রক্ষণাবেক্ষণ কাজে নিয়োজিত মোহম্মাদ জহির জাগো নিউজকে জানান, ওয়াটার ট্যাক্সি চলাচলের ফলে সৃষ্ট ঢেউয়ে হাতিরঝিলের পাড় ভেঙে গেছে। সেসব জায়গায় পাইলিংয়ের কাজ হবে। পাশাপাশি হাতিরঝিল ওয়াটার ট্যাক্সির মেরামত ও রক্ষণাবেক্ষণের জন্য হাতিরঝিল ওয়াটার ট্যাক্সির সব নিয়মিত কার্যক্রম ২২ সেপ্টেম্বর থেকে আগামী ৪ অক্টোবর পর্যন্ত বন্ধ থাকবে। এ সময়ের মধ্যেই আমরা সব কাজ শেষ করার চেষ্টা করছি।

hatirjhil

ইট-পাথরের ব্যস্ত শহরে যানজটে যখন নাগরিকদের দুর্বিষহ অবস্থা, তখন যাতায়াতের নতুন মাত্রা যোগ করেছিল হাতিরঝিলের ওয়াটার ট্যাক্সি। যানজটহীন যাতায়াতের জন্য খুব অল্প সময়ের মধ্যেই হাতিরঝিলে ওয়াটার ট্যাক্সি জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। এফডিসি সংলগ্ন ঘাট থেকে গুলশান বা রামপুরা যেতে বা আসতে যাত্রীদের কাছে এ যানজটহীন পানি পথে প্রতিদিন ১৪টি ওয়ার ট্যাক্সি চলাচল করত। যাত্রীদের তুলনায় ওয়াটার ট্যাক্সির সংখ্যা কম থাকায় কাউন্টারে যাত্রীদের দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করতে হতো আগে থেকেই।

রামপুরা ব্রিজ সংলগ্ন ঘাট থেকে গুলশান ১ নম্বর গুদারাঘাট বা এফডিসি পর্যন্ত ২৫ টাকায় এবং গুদারাঘাট থেকে এফডিসি সংলগ্ন ঘাট পর্যন্ত যাতাযাত করতে ভাড়া লাগে ৩০ টাকা। প্রতিদিন সকাল সাড়ে ৬টা থেকে রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত ওয়াটার ট্যাক্সি চলাচল করতো।