ক্রীড়াঙ্গন

বগুড়ায় রেলসেতুর মেরামত কাজ সন্ধ্যা নাগাদ শেষ হতে পারে

বিমানবন্দর থেকে হোটেলে ফিরতে ফিরতে রাত প্রায় ১১টা। আজ দুবাই থেকে আবুধাবির পথে রওনা দেওয়ার সময় সকাল ১১টা। অর্থাৎ ঘুমানো ও বিশ্রামের জন্য হাতে সময় মাত্র দশ ঘণ্টা। ঢাকা থেকে আসা দুই যাত্রীকে কি এর মধ্যে আজ একাদশে নামানো হবে?

কৌতূহলী এই প্রশ্নের সমাধান গত সন্ধ্যা পর্যন্ত মেলাতে পারেনি টিম ম্যানেজমেন্ট। একটি ব্যাপার নিয়ে এরই মধ্যে ভ্রান্তিও ছড়িয়েছে। বিসিবি সূত্রের খবর, দুবাই থেকে মাশরাফি শুধু ইমরুলের কথা বলেছিলেন। সৌম্যর কথা বলেননি। সৌম্য যে আসছেন, সেটাও নাকি জানতেন না মাশরাফি।

ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ শেষে এমনটা তিনি নিজেই বলেছিলেন। ‘মাশরাফি বলেছিলেন ইমরুলকে আনা যায় কি-না, কিন্তু সৌম্যও যে আসছে সেটা জানতেন না।’ দলের সঙ্গে থাকা একজন এভাবেই পরিষ্কার করেছেন। কিন্তু মাশরাফি না চাইলেও সৌম্যকে কেন আনানো হলো?

আসলে তামিমের অনুপস্থিতিতে কোনো বদলি নেওয়া হয়নি। তার ওপর মুশফিকেরও চোট রয়েছে। তাই ইমরুলের সঙ্গে ব্যাপআপ হিসেবে সৌম্যকেও আনা হয়েছে। আরও গভীরের খবর, অধিনায়কের পছন্দের একাদশ বারবার ব্যর্থ হওয়ায় তার ওপর ভরসার জায়গাটি কিছুটা টলে গেছে। তা ছাড়া দলের কোচ স্টিভ রোডসের পছন্দে আছেন সৌম্য।

আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ‘এ’ দলের হয়ে সৌম্যর কিছু ইনিংস তার মনে ধরেছে। তাই কোচই নাকি চেয়েছেন সৌম্যকে দুবাই নিয়ে আসতে। কোচের পছন্দে সৌম্য আর অধিনায়কের পছন্দে ইমরুল এসেছেন দুবাইয়ে। তবে এখন পর্যন্ত আজকের ম্যাচে এই দু’জনের পক্ষে খেলানোর রায় নেই কারও কারও। হয়তো আজ ইমরুলকে দেখা যেতে পারে ওপেনিংয়ে। মোসাদ্দেক কিংবা লিটনকে বসিয়ে শান্তকেও রাখা হতে পারে একাদশে। আবার সেই জায়গায় আরিফুলকেও নেওয়া যেতে পারে। তবে মাশরাফি এখন পর্যন্ত ভরসা রাখতে চাইছেন শান্ত- লিটনদের ওপরই।