ক্রীড়াঙ্গন

টস জিতে ব্যাটিংয়ে পাকিস্তান

ভারত-পাকিস্তান ম্যাচটা কি নিয়ম রক্ষার? এক ম্যাচ হাতে রেখেই দু’দলই সুপার ফোরে উঠে গেছে। তাতে অবশ্য দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীর মুখোমুখি লড়াইয়ের উত্তাপ একটুও কমছে না। কমবে কিভাবে, যুদ্ধে নিয়ম রক্ষা বলে কোন শব্দ আছে? ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ মানেই তো যুদ্ধ। ময়দানি সেই যুদ্ধের আগুনে নতুন ঘি কিন্তু ভারতই ঢেলেছে। এশিয়া কাপের আসর যে হওয়ার কথা ছিল ভারতে। কিন্তু পাকিস্তানকে অতিথী ভাবতে পারেনি তারা। আর তাই সংযুক্ত আরব আমিরাতে হচ্ছে ম্যাচ।

আর সেই যুদ্ধের ময়দানে টসটা জিতেছে পাকিস্তান। প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারা। সুপার ফোরে উঠে গেলেও ভারত কিংবা পাকিস্তান ম্যাচটাতে ছোট করে দেখছে না। দেখার সুযোগ আছে কি? স্বয়ং পাকিস্তানের নব্য প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান উড়ে এসেছেন ম্যাচ দেখতে!

আর ভারতও এ ম্যাচের জন্য আলাদা তাগিদ অনুভব করেছে। আর তাই হংকংয়ের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে বুমরাহ-হার্ডিক পান্ডিয়াদের বিশ্রামে রাখে। পরপর দুই ম্যাচ খেলতে হবে বিধায় আমিরাতের গরমে শক্তি ক্ষয় করে লাভ কি। বরং পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচের জন্য কিছু জমালেই লাভ।

এশিয়া কাপ শুরুর আগেই অনেকে পাকিস্তানকে এশিয়া কাপের ফেবারিট তকমা দিয়েছেন। দুবাই, আবুধাবি  ঘরের মাঠে পরিণত হয়েছে তাদের। কিন্তু পাকিস্তানের অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ তা মানতে নারাজ। তিনি বলেন, ‘এখানকার আবহাওয়ায় ভারত, বাংলাদেশ, পাকিস্তান, আফগানিস্তানের সঙ্গে মিল আছে। উইকেটও উপমহাদেশের মতো স্লো। তাই এটা সবারই ঘরের মাঠ।’

ভারতের একাদশ: শেখর ধাওয়ান, রোহিত শর্মা, আম্বাতি রাইডু, দিনেশ কার্তিক, এমএস ধোনী, কেদার যাদব, হার্দিক পান্ডিয়া, ভুবনেশ্বর কুমার, যুজবেন্দ্র চাহাল, কুলদীপ যাদব, জসপ্রিত বুমরাহ।

পাকিস্তান একাদশ: ফখর জামান, ইমাম উল হক, বাবর আজম, শোয়েব মালিক, সরফরাজ আহমেদ, আসিফ আলী, শাদাব খান, ফাহিম আশরাফ, উসমান খান, মোহাম্মদ আমির, হাসান আলী।