জাতীয়

শিশু আকিফা হত্যা মামলায় বাসচালক আবার গ্রেফতার

কুষ্টিয়ায় একটি বাসের ধাক্কায় মায়ের কোল থেকে পড়ে শিশু আকিফা নিহত হওয়ার ঘটনায় ওই বাসটির চালককে গ্রেফতার করা হয়েছে।

র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‍্যাব) অভিযানে গ্রেফতার গঞ্জেরাজ পরিবহনের চালকের নাম মহিদ মিয়া।

র‌্যাব জানিয়েছ, বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টায় সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানানো হবে।

গত ২৮ আগস্ট কুষ্টিয়া শহরের চৌড়হাস মোড় এলাকায় শিশু আকিফাকে কোলে নিয়ে রাস্তা পার হচ্ছিলেন তার মা রিনা খাতুন। এই সময় গঞ্জেরাজ পরিবহনের একটি বাস তাদের পেছন থেকে ধাক্কা দিলে মায়ের কোল থেকে পড়ে গুরুতর আহত হয় আকিফা।

৩০ আগস্ট ভোরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। পরে  এ ঘটনায় কুষ্টিয়া মডেল থানায় একটি হত্যাচেষ্টার মামলা হয়। মামলায় বাসের মালিক, চালকসহ তিনজনকে আসামি করা হয়।

আদালত সূত্রে জানা যায়, আকিফার বাবার করা মামলায় গঞ্জেরাজ পরিবহেনর মালিক জয়নাল মিয়াকে ৯ সেপ্টেম্বর ফরিদপুর থেকে গ্রেফতার করেন  র‌্যাব সদস্যরা। পরে রোববার বিকেলে তাকে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।

সোমবার সকালে তার পক্ষে তার আইনজীবীরা সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এম এম মোর্শেদের আদালতে জামিন আবেদন করেন। একই সময়ে আদালতে আত্মসমর্পণ করেন শিশু আকিফাকে ধাক্কা দেওয়া গঞ্জেরাজ পরিবহনের সেই বাসের চালক মহিদ মিয়া ওরফে খোকন। পরে আদালত দুইজনকেই জামিন দেন।

পরদিন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সুমন কাদেরী মামলাটি ৩০২ ধারায় সংযোজন করার জন্য একই আদালতে আবেদন করেন। আবেদনটি আদালত মঞ্জুর করেন।

একই সঙ্গে বাসের মালিক ও চালকের জামিন আদেশ বাতিলে আদালতের উপপরিদর্শক আজহার আলী আবেদন করলে আদালত তাদের জামিন আদেশ বাতিল করে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন।

আকিফা ও তার মাকে বাসের ধাক্কা দেওয়ার ঘটনাটি স্থানীয় একটি দোকানের সিসি ক্যামেরায় ধরা পড়ে। এতে দেখা যায়, গঞ্জেরাজ পরিবহনের বাসটিকে রাস্তার পাশে দাঁড় করিয়ে যাত্রী তোলা হচ্ছিল। এই সময় রাস্তার উল্টো দিক থেকে শিশু আকিফাকে কোলে নিয়ে তার মা দাঁড়িয়ে থাকা ওই বাসের সামনে দিয়ে রাস্তা পার হচ্ছিলেন। ঠিক তখনই বাসটি চলতে শুরু করে ও রিনা বেগমকে পর পর দুইবার ধাক্কা দিয়ে চলে যায়। এতে তার কোল থেকে ছিটকে পড়ে আকিফা।