জাতীয়

ব্যর্থ হলে মাঝপথে মন্ত্রিত্ব ছাড়তে হবে :কাদের

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, প্রবীণ ও অভিজ্ঞ রাজনীতিবিদদের মন্ত্রিত্ব থেকে বাদ দেওয়া হয়নি, দলকে আরও শক্তিশালী ও দক্ষ করতেই তাদের দায়িত্ব অন্যদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

সোমবার বঙ্গভবনে শপথগ্রহণ শেষে গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, এবার প্রধানমন্ত্রী খুব সিরিয়াস এবং এই ব্যাপারে তার সিদ্ধান্ত অত্যন্ত কঠিন। পারফরমেন্স না করতে পারলে অবশ্যই কারও মন্ত্রী থাকার কোনো অধিকার থাকবে না। ব্যর্থ হলে মাঝপথে মন্ত্রিত্ব ছাড়তে হবে।

জোটের শরিকদের মন্ত্রিপরিষদে না থাকা প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, মন্ত্রিত্ব না থাকলে তাদের সঙ্গে আওয়ামী লীগের ঐক্যজোট ভেঙে গেছে, এমন নয়।

ওবায়দুল কাদের বলেন, মন্ত্রিসভা কিছু সম্প্রসারণ তো মাঝে মধ্যে হয়ই। গতবারও প্রথম ক্যাবিনেট যখন হয়, কয়েকদিন পরই আবার সম্প্রসারণ হয়েছিল। এবার নতুন মন্ত্রী নতুন মুখ আসছেন, তারা কিন্তু ঠিকভাবে ডেলিভার না করতে পারলে আবার বাদও যেতে পারেন। ক্যাবিনেট পরিবর্তন হতে পারে। একটা সময় তো তাদের দিতে হবে। পারফরমেন্সের ওপর নির্ভর করবে তারা কে কত সময় ধরে মন্ত্রিসভায় থাকতে পারবেন।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, এবার মন্ত্রিসভায় একটা বিষয় এসেছে, সেটা খোলামেলা বলা উচিত। শেখ হাসিনার যে দৃষ্টিভঙ্গিটা কাজ করেছে সেটা হচ্ছে, তিনি এবার মন্ত্রিসভা গঠনে গুরুত্ব দিয়েছেন যেসব এলাকাগুলো দীর্ঘকাল ধরে মন্ত্রী হওয়া থেকে বঞ্চিত, যেসব জেলা থেকে মন্ত্রী হয়নি, সেসব জেলাকে তিনি বেশি গুরুত্ব দিয়েছেন। এবার অনেক জেলা থেকে নতুন মুখ এসেছে।

নতুন মন্ত্রিসভায় জোটের শরিকদের না থাকার বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, শরিকরা আমাদের সঙ্গে রয়েছেন। মন্ত্রী না হলে তারা থাকবেন না এমন নয়। ভবিষ্যতে মন্ত্রিসভা পরিবর্তন হবে। সময়ে সময়ে চাহিদা অনুযায়ী পরিবর্তনও হতে পারে। শরিকরা এখন নেই, ভবিষ্যতে আসবে না এমন নয়।