সারাদেশ

আন্দোলনের মুখে সরে দাঁড়ালেন শ্রমিক লীগ নেতা

প্রায় এক যুগ ধরে বরিশাল নগরীর নথুল্লাবাদ কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালের নিয়ন্ত্রক ছিলেন বরিশাল মহানগর শ্রমিক লীগের সভাপতি আফতাব হোসেন।

শ্রমিকদের টানা আন্দোলনের মুখে অবশেষে সভাপতির পদ থেকে সরে দাঁড়ালেন জেলা বাস মালিক গ্রুপের সভাপতি আফতাব হোসেন।

মঙ্গলবার দুপুরে আফতাব হোসেনের স্বাক্ষরিত পদত্যাগপত্রের মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যায়। এতে তিনি শারীরিক অসুস্থতা ও ব্যক্তিগত কারণের কথা উল্লেখ করেছেন।

এছাড়া বরিশাল জেলা বাস মালিক গ্রুপের সহ-সভাপতি ইউনুস আলীকে খানকে সভাপতির দায়িত্ব দেয়া হয়েছে বলে পদত্যাগপত্রে উল্লেখ করা হয়। নিজের পদত্যাগের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আফতাব হোসেন।

বরিশাল জেলা সড়ক পরিবহন (বাস-মিনিবাস, কোচ, মাইক্রোবাস) শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মো. জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, জেলা বাস মালিক গ্রুপের সভাপতি আফতাব হোসেনের পদত্যাগে শ্রমিকরা খুশি হয়েছে। তাদের দীর্ঘদিনের আন্দোলনের দাবি পূরণ হয়েছে। এখন মালিক সমিতি ভালো লোক দেখে যাকে সভাপতি করবে, আমরা শ্রমিক সংগঠন তাকেই মেনে নেব।

এর আগে গত ২ জানুয়ারি বেলা ১১টায় প্রভাতী পরিবহনের চালক আলমগীর হোসেনকে মারধর করে বরিশাল জেলা বাস মালিক গ্রুপের সভাপতি আফতাব হোসেন। এছাড়া তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময় শ্রমিকদের নির্যাতন এবং বাস টার্মিনালে ব্যাপক চাঁদাবাজিরও অভিযোগ রয়েছে। ওই ঘটনা কেন্দ্র করেই শ্রমিকরা দফায় দফায় আন্দোলন করে পদত্যাগের দাবি জানিয়ে আসছিল।

১৯৯১ সাল থেকে দীর্ঘ ২৭ বছর বরিশাল কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালে তিনি রাজত্ব করেছেন বলে অভিযোগ ছিল। তার বিরুদ্ধে শ্রমিক ও মালিক নির্যাতনের অভিযোগ ছিল দীর্ঘদিনের।

সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়ন সভাপতি জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, মালিক সমিতির সভাপতি পদ থেকে আফতাব হোসেনের পদত্যাগ ও চালককে মারধর করায় তার বিচারের দাবিতে আগামীকাল বুধবার থেকে পরিবহন ধর্মঘট আহ্বান করা হয়েছিল। কিন্তু আফতাব হোসেন পদত্যাগ করায় ধর্মঘট প্রত্যাহার করে নেয়া হয়েছে।

পদত্যাগ করা আফতাব হোসেন বলেন, শারীরিক অসুস্থতা এবং ব্যক্তিগত কারণে আমি অব্যাহতি নিয়েছি। কোনো চাপ ছিল কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে আফতাব বলেন, কিছু বহিরাগত বাস টার্মিনাল দখল করতে আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছিল। এর পেছনে তৃতীয় শক্তি কাজ করছে। একটি সাজানো ঘটনায় বাস টার্মিনালে অস্বস্তিকর পরিবেশ তৈরি হওয়ায় আমি পদত্যাগ করেছি।