সারাদেশ

প্রার্থিতা ফিরে পেলেন ঐক্যফ্রন্টের রেজা কিবরিয়া

হবিগঞ্জ-১ আসনের গণফোরামের প্রার্থী রেজা কিবরিয়া নির্বাচন কমিশনে আপিল করে প্রার্থীতা ফিরে পেয়েছেন।

আওয়ামী লীগের অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়ার ছেলে রেজা কিবরিয়া আগামী ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠেয় একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হিসেবে বিএনপির ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন।

গত ২ ডিসেম্বর রিটার্নিং কর্মকর্তার বাছাইয়ে ‘ঋণখেলাপির’ অভিযোগে রেজা কিবরিয়ার মনোনয়নপত্র বাতিল করে করে দেওয়া হয়।

রিটার্নিং কর্মকর্তার পক্ষ থেকে বলা হয়, সিটি ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ড বিভাগ ও ঢাকা ব্যাংক থেকে পাঠানো অভিযোগের ভিত্তিতে রেজার মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।

রেজা কিবরিয়া ওই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশনে আপিল করলে শুক্রবার তার আবেদনের ওপর শুনানি হয়। নির্বাচন কমিশন আপিল মঞ্জুর করায় প্রার্থিতা ফিরে পান কামাল হোসেনের গণফোরামের এই প্রার্থী।

শুনানি শেষে রেজা সাংবাদিকদের বলেন, তার বিরুদ্ধে ক্রেডিট কার্ডে ঋণ খেলাপির অভিযোগ আনা হয়েছিল। কিন্তু তিনি কখনও ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করেননি, তার ঋণও বকেয়া নেই।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, “আমি ন্যায়বিচার পেয়েছি। আশা করছি সবাই পাবে।”

আপিল মঞ্জুর হওয়ায় এখন ইসির ওপর আস্থা রাখতে পারছেন কিনা- এমন প্রশ্নে রেজা কিবরিয়া বলেন, “এ প্রশ্নটা নির্বাচনের পরদিন করলে তার উত্তর দিতে পারব।”

রেজার বাবা শাহ এ এম এস কিবরিয়া শেখ হাসিনার ১৯৯৬-২০০১ সালের সরকারে অর্থমন্ত্রী ছিলেন। ভোটের আগে কামাল হোসেন নেতৃত্বাধীন গণফোরামে যোগ দিয়ে এবং বিএনপিকে সঙ্গে নিয়ে গঠিত ঐক্যফ্রন্ট থেকে নির্বাচন করার ঘোষণা দিয়ে আলোচনার জন্ম দেন জাতিসংঘের সাবেক এই কর্মকর্তা।

২০০১ সালে হবিগঞ্জ-১ আসনে (নবীগঞ্জ-বাহুবল) আসন থেকে আওয়ামী লীগের টিকেটে নির্বাচন করে সংসদ সদস্য হন বাবা শাহ এ এম এস কিবরিয়া। ২০০৫ সালে হবিগঞ্জে গ্রেনেড হামলায় নিহত হন তিনি।

বাবা আওয়ামী লীগ করলেও অন্য দলে গিয়ে নির্বাচনে অংশ নেওয়ার বিষয়ে রেজা এর বলেছিলেন, “আমার বাবা আওয়ামী লীগের রাজনীতি করলেও আমি কখনও আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে জড়িত হইনি। এছাড়া গত ১৪ বছরেও আমার বাবার হত্যাকারীদের বিচারের আওতায় আনতে পারেনি আওয়ামী লীগ।